খুশকি তাড়াতে নিম

খুশকি তাড়াতে নিম পাতার ব্যবহারের চেয়ে সহজ আর কোনো পদ্ধতি নেই। কারণ এটি প্রায় সবখানেই পাওয়া যায়। এবং বাড়ির আঙ্গিনায় গাছ লাগিয়ে সহজেই উৎপাদন করা যায়।
নিম পাতায় যেসব উপাদান আছে তা নানা ধরনের ত্বকের রোগ এবং চুলের সমস্যা সমাধানে ব্যবহৃত হয়। এতে রয়েছে রক্ত বিশুদ্ধকরন এবং জীবাণুনাশক উপাদান। এ ছাড়া এতে আরো রয়েছে ছত্রাক, ভাইরাস এবং প্রদাহরোধী উপাদান।
খুশকি তাড়িয়ে সুন্দর এবং ঝকঝকে চুল পাওয়ার জন্য নিমের ব্যবহার পদ্ধতিগুলো-
পাতা চিবিয়ে খান : সৌন্দর্য বিশেষজ্ঞদের মতে, খুশকি থেকে পরিত্রাণের সবচেয়ে সহজ উপায় হলো, প্রতিদিন সকালে নিম পাতা চিবিয়ে খাওয়া। তবে নিম পাতা যেহেতু বেশ তেঁতো সেহেতু আপনাকেও বেশ দৃঢ় প্রত্যয়ী হতে হবে। তেঁতো স্বাদ থেকে মুক্তি পেতে নিম পাতা সেদ্ধ করে রস বের করে তার সঙ্গে মধু মিশিয়ে জুস বানিয়ে খেতে পারেন।
নিম তেল : নিম থেকে তেল বানিয়েও ব্যবহার করা যায়। নারকেল তেলের সঙ্গে বেশ কয়েকটি নিম পাতা মিশিয়ে সেদ্ধ করুন। এরপর কয়েক ফোঁটা লেবুর রস মিশিয়ে নিন। এই তেল আপনার মাথার ত্বকে আলতো করে ঘষে ঘষে লাগান। রাতে তেল লাগিয়ে রেখে ঘুমাতে যান এবং সকালে গোসলের সময় ধুয়ে ফেলুন।
নিম এবং দই : নিম এবং দইয়ের মিশ্রণে তৈরি পেস্ট ব্যবহার খুশকি তাড়ানোতে বেশ কার্যকর। প্রথমে নিম পাতা ছেঁচে নিয়ে পেস্ট তৈরি করুন। এরপর পরিমাণ মতো দইয়ের সঙ্গে মিশিয়ে পুরো মাথার ত্বকে লেপে দিন। এর ১৫-২০ মিনিট পর পানি দিয়ে আলতো করে ঘষে ঘষে ধুয়ে ফেলুন। নিমের ছত্রাকরোধী উপদান আর দইয়ের শীতল প্রভাব খুশকি তাড়াতে বিস্ময়কর ফল দিবে।
নিম চুলের মাস্ক : নিম পাতার সঙ্গে মধু মিশিয়ে পিষে পিষে ভারি পেস্ট তৈরি করুন। এরপর পুরো মাথায় চুলের মাস্কের মতো করে লেপে দিন। এভাবে ২০ মিনিট রেখে মাস্কটি একটু শুকিয়ে নিন। এরপর পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। দেখবেন আপনার ত্বকের অসাধারণ উপকার করেছে এটি।
কন্ডিশনার হিসেবে নিমের ব্যবহার : কিছু নিম পাতা নিয়ে প্রথমে সেদ্ধ করুন। এরপর তা ঠাণ্ডা করে রাখুন। চুলে শ্যাম্পু করার পর সেদ্ধ নিম পাতা ও রসের মিশ্রণ মাথার ত্বকে আলতোভাবে ঘষে ঘষে লাগিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এরপরই দেখতে পাবেন নীমের বিস্ময়কর কার্যকারিতা। আয়র্বেদ শাস্ত্রমতে, নীমের যেসব ঔষধি গুণাগুণ আছে তা সব ধরনের চুলের রোগ সারাতে কাজে লাগে। তবে তা নিয়মিতভাবে ব্যবহার করতে হবে। সূত্র : এনডিটিভি
Facebook Comments